Home EDUCATION & CAREER ১৩ বছরেও হস্টেল হয়নি, সমস্যায় গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা

১৩ বছরেও হস্টেল হয়নি, সমস্যায় গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা

SHARE

১০ই সেপ্টেম্বর ২০২১, ওয়েভ ইন্ডিয়া বাংলা , ওয়েব ডেস্ক :-মালদা ও দুই দিনাজপুরের পড়ুয়াদের উচ্চশিক্ষার সুবিধার জন্য মালদায় তৈরি হয়েছিল গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়। তারপর ১৩ বছর পেরিয়ে গিয়েছে। দূর-দূরান্ত থেকে আগত ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা বেড়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ে। কিন্তু, বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে হস্টেল পরিষেবা চালু হয়নি। ফলে চরম অসুবিধা পড়তে হচ্ছে ভিন জেলার ছাত্র-ছাত্রীদের। তাই এবার বিষয়টি নিয়ে নড়েচড়ে বসেছে শাসকদলও। আগামী শিক্ষাবর্ষের আগেই হস্টেল পরিষেবা চালু করার দাবি জানিয়েছেন মালদা জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের ছাত্র পরিষদের সভাপতি প্রসূন রায়। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ অবশ্য শীঘ্রই হস্টেল চালু করার আশ্বাস দিয়েছেন। তবে কবে হবে তা স্পষ্ট করেনি। গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়টি তৈরি হয়েছিল বাম জমানায়। তারপর রাজ্য-রাজনীতিতে অনেক পট পরিবর্তন হয়েছে। শাসকদল বদলেছে। গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়েও পড়ুয়ার সংখ্যা বেড়েছে। বালুরঘাট, বহরমপুর, শিলিগুড়ি, রায়গঞ্জ সহ বিভিন্ন দূরবর্তী এলাকা থেকে ছাত্র ভর্তি হয়েছে। কিন্তু পরিকাঠামোগত পরিবর্তন হয়নি।

ছাত্র-ছাত্রীরা দীর্ঘদিন ধরে বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে হস্টেল তৈরির দাবি জানালেও তা বাস্তবায়িত হয়নি। ফলে চরম অসুবিধার সম্মুখীন হচ্ছেন ভিন জেলার ছাত্র-ছাত্রীরা। ঘর ভাড়া করে অন্যত্র থাকতে হচ্ছে তাঁদের। শহরের দুটি জায়গায় বিশ্ববিদ্যালয়ের তরফে অস্থায়ীভাবে হস্টেল খোলা হলেও তা বসবাসযোগ্য নয় বলে দাবি পড়ুয়াদের। বটানি ডিপার্টমেন্টের ছাত্রী মামন মণ্ডল বলেন, ‘বাইরে ঘর ভাড়া নিয়ে থাকতে হয়। কিন্তু শহরের বাইরে বিশ্ববিদ্যালয়। ক্লাস করে বেরোতে সন্ধ্যা হয়ে যায়। ফলে যেতে অসুবিধায় পড়তে হয়।’ ভিন জেলা থেকে আগত আরেক ছাত্রী নবনীতা কুণ্ডু বলেন, ‘বাইরে থেকে এসে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করছি, থাকার ক্ষেত্রে খুব সমস্যা হচ্ছে। আমাদের দাবি, বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ দ্রুত হস্টেল চালু করুক।’ যদিও গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে হস্টেল তৈরির কাজ বছর দুয়েক আগেই শুরু হয়েছে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক জটিলতার গেরোয়া কাজ সম্পূর্ণ হয়নি বলে জানিয়েছেন মালদা জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের ছাত্র পরিষদের সভাপতি প্রসূন রায়। তিনি বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক সমস্যার জন্য কোনও ভিসি মেয়াদ সম্পূর্ণ করছেন না। ফলে হোস্টেলের কাজ শুরু হলেও বারবার থমকে যাচ্ছে। তবে বর্তমান ভিসি কাজ শুরু করেছেন। আমরা শিক্ষামন্ত্রীরও দৃষ্টি আকর্ষণ করছি। আশা করছি, আগামী শিক্ষাবর্ষের আগে হস্টেল চালু করতে বিশ্ববিদ্যালয় সদর্থক ভূমিকা নেবে।’

ইতিমধ্যেই দুটি হোস্টেলের মধ্যে একটির কাজ শেষ পর্যায়ে বলে জানিয়েছেন গৌড়বঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অপূর্ব চক্রবর্তী। তিনি বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে অনেকদিনই লেডিস ও বয়েজ- দুটি হস্টেল তৈরির কাজ শুরু হয়েছে। করোনার জন্য অনেকদিন কাজ বন্ধ ছিল। তবে ছাত্রীদের হস্টেল বিল্ডিংয়ের কাজ প্রায় শেষ। ছাত্রদের হস্টেল বিল্ডিংয়ের কাজ এখনও চলছে। আশা করি, শীঘ্রই দুটি হস্টেল শুরু করতে পারব।’ তবে ২০২২-২০২৩ শিক্ষাবর্ষের আগে হস্টেল চালু হবে কিনা তা স্পষ্ট করেননি তিনি।

 

SHARE

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here