Home EDUCATION & CAREER মধ্যপ্রদেশের গেরুয়া সিলেবাসে এবার শ্রীরামচন্দ্র দক্ষ ইঞ্জিনিয়ার

মধ্যপ্রদেশের গেরুয়া সিলেবাসে এবার শ্রীরামচন্দ্র দক্ষ ইঞ্জিনিয়ার

SHARE

১৫ই সেপ্টেম্বর ২০২১, ওয়েভ ইন্ডিয়া বাংলা , ওয়েব ডেস্ক :-শিক্ষায় বৈদিকীকরণ আর কাকে বলে! ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে নাকি বেশ দক্ষতা ছিল রামচন্দ্রের, আর তাঁর সেই দক্ষতার কথা এবার নিয়ে আসা হচ্ছে মধ্যপ্রদেশের কলেজ পড়ুয়াদের পাঠক্রমে। সেই রাজ্যের কলেজে এবার পড়ানো হবে রামচরিত মানসও। নির্দিষ্ট বিষয়ের পাশাপাশি মহাভারত কিংবা রামচরিত মানসের মতো মহাকাব্য পাঠও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে সিলেবাসে। ২০২০ সালের নতুন শিক্ষানীতি অনুযায়ী তৈরি করা হয়েছে নয়া পাঠ্যসূচি। আর তাতেই এই সংযোজন করা হয়েছে। সেই নতুন পাঠ্যসূচিতে বলা হয়েছে রামচন্দ্র অত্যন্ত দক্ষ ছিলেন ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে। সেই সঙ্গে তাঁর পিতৃভক্তির কথাও বলা হয়েছে।

নতুন আনা সিলেবাসে পড়ুয়াদের পড়তে হবে ‘শ্রীরামচরিতমানসের ফলিত দর্শন’। থাকছে ‘ওম’ মন্ত্রোচ্চারণ ও যোগাভ্যাসের মতো বিষয়ও। সেই সঙ্গে এসেছে রামচন্দ্রের বিশেষ ‘গুণের’ কথা। বলা হয়েছে, রামসেতুর মতো এক সেতু নির্মাণ থেকে রামচন্দ্রের ইঞ্জিনিয়ারিং দক্ষতার পরিচয় পাওয়া যাচ্ছে। এর পাশাপাশি চক্রবর্তী রাজাগোপালচারীর লেখা মহাভারতের ইংরেজি অনুবাদও রয়েছে সিলেবাসে। আর ভারতীয় সংস্কৃতির শিকড় সন্ধানে অধ্যাত্মবাদ ও ধর্মের ভূমিকাও সিলেবাসে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সেই সঙ্গে বেদ, উপনিষদ, পুরাণ সম্পর্কেও পড়ানো হবে পড়ুয়াদের। বোঝানো হবে রামচরিত মানস ও রামায়ণের পার্থক্য।

স্বাভাবিকভাবেই মধ্যপ্রদেশে বিজেপি বিরোধী দলগুলি সিলেবাসের বিষয়বস্তু নিয়ে আপত্তি তুলেছে। কংগ্রেস বিধায়ক পিসি শর্মা বলেন, ”মহাভারত, গীতা, রামচরিতমানস শেখানো নিয়ে আমাদের কোনও সমস্যা নেই। কিন্তু বাইবেল, কোরান ও গুরু গ্রন্থসাহিবকেও এই সিলেবাসের অন্তর্ভুক্ত করা হোক। এতে পড়ুয়াদের মধ্যে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উন্নতি ঘটবে। কিন্তু ওরা এটা করবে না। কারণ এই আদর্শে ওরা বিশ্বাস করে না”।

উল্লেখ্য করোনা পরিস্থিতিতে দীর্ঘ দিন বন্ধ থাকার পরে প্রায় দেড় হাজার কলেজ খুলেছে গত মাসে। তবে এখন অর্ধেক ছাত্রছাত্রী নিয়েই শুরু হয়েছে পঠনপাঠন। আর কলেজ খোলার পর বিতর্ক শুরু হল সিলেবাস নিয়ে। তবে এই প্রথম নয়, এর আগে ২০১১ সালে স্কুলে গীতা পড়ানোর প্রস্তাব এনে বিরোধীদের সমালোচনার মুখে পড়েছিল মধ্যপ্রদেশ সরকার। পরে সেই নির্দেশ প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণ কাজ শুরু হয়েছে। উত্তরপ্রদেশ বিধানসভা নির্বাচনে মন্দির আবেগ কাজে লাগাতে চায় বিজেপি। এবার রামচন্দ্রকে নতুন ভূমিকায় অবতীর্ণ করা হচ্ছে সিলেবাস।

 

SHARE

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here