Home Politics শিল্পাঞ্চলে স্বনির্ভর গোষ্ঠীতে নাম লেখাচ্ছেন শ’য়ে শ’য়ে মহিলা

শিল্পাঞ্চলে স্বনির্ভর গোষ্ঠীতে নাম লেখাচ্ছেন শ’য়ে শ’য়ে মহিলা

SHARE

১৫ই সেপ্টেম্বর ২০২১, ওয়েভ ইন্ডিয়া বাংলা , ওয়েব ডেস্ক :-শিল্পাঞ্চলের মহিলারা নিজের পায়ে দাঁড়াতে বদ্ধপরিকর। একদিকে যেমন ব্যবসা করতে উদ্যোগী বহু বাঙালি মেয়ে, তেমনি সরকারি সাহায্য নিয়ে ব্যবসা করতে শ’য়ে শ’য়ে মহিলা স্বনির্ভর গোষ্ঠীতে নাম লেখাচ্ছেন। এক মাসের মধ্যে গড়ে উঠেছে নতুন সাতশোটি স্বনির্ভর দল। যা এক কথায় অভূতপূর্ব। স্বনির্ভর দলের মহিলারা যাতে দ্রুত ব্যাঙ্ক থেকে লোন পান তা সুনিশ্চিত করতে প্রতি ব্লকের স্বনির্ভর গোষ্ঠীর সংঘ থেকে ব্যাঙ্কিং করেসপডেন্স সখী (বিসিসখী) নামে একজনকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। তাঁরা গোষ্ঠীর সঙ্গে ব্যাঙ্কের মেলবন্ধন ঘটিয়ে দ্রুত অর্থের জোগান দেওয়ার ব্যবস্থা করবেন। কয়লা খাদানে কাজ করা খনি অঞ্চলের মেয়েদের সৎপথে উপার্জনের এই উদ্যোগকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিচ্ছে প্রশাসন।

একদিকে মহিলাদের স্বনির্ভর করার জন্য মুখ্যমন্ত্রীর আরেক জনমোহিনী প্রকল্প লক্ষ্মীর ভাণ্ডারেও বিপুল সাড়া। তিন সপ্তাহের মধ্যে শুধু পশ্চিম বর্ধমান জেলা থেকেই এক লক্ষ ৪১ হাজার ৮০০ জনের আবেদনের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। চলতি মাসেই হাতখরচের টাকা পেয়ে যাবেন মহিলারা। স্বাভাবিক ভাবেই পুজোর আগে হাত খরচের টাকা পাওয়ার সম্ভাবনা উজ্জ্বল হতেই আনন্দিত গৃহবধূরা। স্বনির্ভরগোষ্ঠীর দপ্তরের জেলা আধিকারিক পারমিতা মণ্ডল বলেন, নতুন গোষ্ঠীর করতে সাধারণ মহিলাদের ব্যাপক সাড়া পাওয়া যাচ্ছে। মাসখানেকের মধ্যে নতুন করে সাত হাজার মহিলা স্বনির্ভর দলে অন্তর্ভূক্ত হয়েছেন। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রথম থেকেই মহিলাদের স্বনির্ভর করে তুলতে উদ্যোগী হয়েছেন। স্বনির্ভর গোষ্ঠীর মাধ্যমে নানা সামগ্রী প্রস্তুতের জন্য ব্যাঙ্কের লোন দেওয়া, জিনিস বিক্রির জন্য বিভিন্ন মেলার আয়োজন করে গ্রামীণ অর্থনীতিকে শক্তিশালী করতে চেয়েছেন। এবার করোনা কালে অর্থনীতি যখন ভেঙে পড়েছে তখন মেয়েদের হাতে অনুদানের টাকা তুলে নিয়ে স্থানীয় মার্কেটগুলিকে চাঙা করার কথা ভেবেছেন। এরই মধ্যে শিল্পাঞ্চলের মহিলাদের মধ্যেও বিশেষ তৎপরতা চোখে পড়ছে। নতুন করে ট্রেড লাইসেন্স করানোর জন্যও মহিলাদের লাইন নজরে পড়ছে। তেমনি স্বনির্ভর দলে নাম তোলার হিড়িক। অন্যদিকে সরকারও তাঁদের উৎসাহ বাড়াতে পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। প্রতি পঞ্চায়েতে একজন করে বিসিসখী রেখে ব্যাঙ্কের হয়রানি থেকে স্বনির্ভর দলের মহিলাদের মুক্তি দিতে চান তাঁরা। তাঁদের প্রয়োজনীয় মেশিন ও প্রশিক্ষণ দিয়ে সাহায্য করছে সংশ্লিষ্ট দপ্তর। বুধবার আসানসোলে জেলার ৫০ জন বিসিসখীদের নিয়ে বৈঠক হয়। ভার্চুয়ালি রাজ্যের আমলারাও সেই বৈঠকে হাজির ছিলেন।

 

SHARE

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here